কুরআনের সমাজ প্রতিষ্ঠিত হলে সকল শ্রেণীর মানুষের অধিকার নিশ্চিত হবে : শায়খুল হাদীস আল্লামা আশরাফ আলী

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের অভিভাবক পরিষদের চেয়ারম্যান শায়খুল হাদীস আল্লামা আশরাফ আলী বলেছেন, রাজনৈতিক সংকট নিরসনে রোজার সংযমের পথ ধরে সরকার ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে সহনশীল হতে হবে। তিনি বলেন, আল্লাহ তাআলা রোজা আমাদের উপর ফরজ করেছেন, আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে পরিশুদ্ধ জীবন অর্জন করার জন্যে। কুরআনের সমাজ প্রতিষ্ঠিত হলে সকল শ্রেণীর মানুষের অধিকার নিশ্চিত হবে। তাই কুরআন নাযিলের এমাসে কুরআনী সমাজ প্রতিষ্ঠায় আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রত্যয় নিতে হবে। ৯০% মুসলমানের দেশে লতিফ সিদ্দিকী মহানবী সা. ও ইসলামের বিরুদ্দে কটূক্তি করে যেভাবে দাম্ভিকতা প্রদর্শন করেছে। দেশের তাওহীদি জনতা তার সর্বোচ্চ শাস্তি দাবী করা সত্তেও তার মামলা খালাস হওয়াতে দেশের রাসূল প্রেমিক জনগণ ক্ষুব্ধ। লতিফ সিদ্দিকীকে মুক্তি দেওয়া হলে এদেশের জনগণ ঘরে বসে থাকবে না । তিনি আরো বলেন, সরকার রমজান মাসে দ্রর্বমূল্য নিয়ন্ত্রনে রাখতে ও পরিবেশ রক্ষায় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। এব্যাপারে সরকারের কার্যকরী ভূমিকা রাখা খুবই জরুরী। আল্লামা আশরাফ আলী বন্যা ও পাহাড় ধসে নিহতদের রুহের মাগফেরাত কামনা ও ক্ষতিগ্রস্থদের ত্রাণ সহযোগিতা প্রেরণের জন্যে সরকার ও বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান।
আজ হোটেল রাজমনি ইশাখাতে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় ইফতার মাহফিলে সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।
মাহফিলে উপস্থিত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো নেই। হত্যা-ধর্ষণ বেড়েই চলছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এক্ষেত্রে কার্যকরী কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না। দেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসন হয়নি। দিন দিন রাজনৈতিক সংকট বেড়েই চলেছে। রাজনৈতিক সংকট নিরাসনে সরকারই এগিয়ে আসতে হবে।
ইফতার মাহফিলে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী ঐক্য আন্দোলন আমীর মাওলানা ড. ঈশা শাহেদী, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিষ্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, দৈনিক নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দীন, বাংলাদেশ নেজামে ইসলামী পার্টির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা লোকমান হোসেন, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মজিবুর রহমান হামিদী, বাংলাদেশ লেবার পার্টির ভাইস-চেয়ারম্যান মুহাম্মদ এমদাদুল হক, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।
দলের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হকের পরিচালনায় দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নায়েবে আমীর মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরী, মাওলানা ইউসুফ আশরাফ, মাওলানা খুরশিদ আলম কাসেমী, মাওলানা রেজাউল করিম জালালী, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আবু সাঈদ নোমান, মাওলানা আব্দুল আজিজ, প্রশিক্ষণ সম্পাদক, ড. জিএম মেহেরুল্লাহ, অফিস ও প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুল হক, নির্বাহী সদস্য হাফেজ শহিদুর রহমান, মুহাম্মদ শাহাবুদ্দিন, ঢাকা মহানগরীর সভাপতি মাওলানা এনামুল হক নূর, ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ হারুনুর রশিদ প্রমুখ।